• বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ০৪:১২ অপরাহ্ন

‘কোনো গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের সরকারের প্রতি সমর্থন নেই’

Reporter Name / ১০৪ Time View
Update : শনিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

সরকারের পদত্যাগসহ গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার একদফা দাবিতে রাজধানীতে পৃথকভাবে সমাবেশ করেছে ১২ দলীয় জোটসহ সমমনা রাজনৈতিক দল ও জোট। শুক্রবার বিএনপিও রাজধানীর দুই স্থানে যুগপৎ আন্দোলনের একই কর্মসূচি পালন করে।

সমমনাদের সমাবেশে নেতারা বলেন, সরকারের প্রতি পশ্চিমা বিশ্বসহ কোনো গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের সমর্থন নেই। তাই এখনো সময় আছে জনগণের দাবির কাছে নতি স্বীকার করে সম্মানজনকভাবে বিদায়ের উপায় বের করুন। সময় শেষ। বিনা ভোটের নির্বাচনে আর ক্ষমতায় আসতে পারবেন না।

১২ দলীয় জোট : রাজধানীর বিজয়নগর পানির ট্যাংকের সামনে বিকালে বিক্ষোভ সমাবেশ করে ১২ দলীয় জোট। পরে জোট নেতাদের বিক্ষোভ মিছিল বিজয়নগর থেকে শুরু হয়ে নাইটিংগেল মোড় ঘুরে পুরানা পল্টনে গিয়ে শেষ হয়। জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) চেয়ারম্যান ও জোট প্রধান মোস্তফা জামাল হায়দারের সভাপতিত্বে ও বাংলাদেশ এলডিপির অতিরিক্ত মহাসচিব তমিজ উদ্দিন টিটুর সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, জাতীয় দলের অ্যাডভোকেট সৈয়দ এহসানুল হুদা, বাংলাদেশ এলডিপির মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের মুফতি গোলাম মহিউদ্দিন ইকরাম, বাংলাদেশ মুসলিম লীগের (বিএমএল) অ্যাডভোকেট শেখ জুলফিকার বুলবুল চৌধুরী, জাতীয় গণতান্ত্রিক দলের (জাগপা) রাশেদ প্রধান প্রমুখ।

এতে নেতারা বলেন, ১৫ বছর ধরে আবারও অঘোষিতভাবে বাকশাল প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করা হচ্ছে। গত দুবারের মতো এবারও যদি আওয়ামী লীগ বিনা ভোটে নির্বাচিত হয়ে দেশ চালানোর সুযোগ পায়, তাহলে দেশে পুরোপুরি বাকশাল প্রতিষ্ঠিত হবে। দেশ থেকে গণতন্ত্র চিরদিনের জন্য বিদায় নেবে।

এলডিপি : রাজধানীর পূর্ব পান্থপথস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করে লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি)। এতে দলের প্রেসিডেন্ট ড. কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বলেন, বর্তমান সরকার সমগ্র দেশকে অরাজকতা, অপশাসন এবং দুর্নীতির দিকে ঠেলে দিয়েছে, সর্বত্র হাহাকার। এমতাবস্থায় একমাত্র উপায় অবাধ, সুষ্ঠু এবং তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আওতায় জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা নিশ্চিত করা। হয়তো এর মাধ্যমে মানুষের দুঃখ-দুর্দশা লাঘব হবে।

সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন এলডিপির কেন্দ্রীয় নেতা নূরুল আলম তালুকদার, ড. নেয়ামূল বশির, ড. আওরঙ্গজেব বেলাল, অ্যাডভোকেট এসএম মোরশেদ, অধ্যক্ষ সাকলায়েন, মাহে আলম চৌধুরী, অধ্যক্ষ মাহবুবুর রহমান, অধ্যাপিকা কারিমা খাতুন, বিল্লাল হোসেন মিয়াজি প্রমুখ।

জাতীয়তাবাদী সমমনা জোট : বিকালে রাজধানীর পুরানা পল্টন মোড় সংলগ্ন আলরাজি কমপ্লেক্সের সামনে সমাবেশ করে জাতীয়তাবাদী সমমনা জোট। এতে জোটের সমন্বয়ক ও এনপিপির চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ বলেন, বিরোধী দলগুলোর চলমান জনসম্পৃক্ত যুগপৎ আন্দোলনে আগামী এক মাসের মধ্যে এই সরকারের পতন ঘটবে।

এনপিপির মহাসচিব মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফার সঞ্চালনায় সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন বাংলাদেশ মাইনরিটি জনতা পার্টির সুকৃতি কুমার মন্ডল, গণদলের এটিএম গোলাম মাওলা চৌধুরী, জাগপার এসএম শাহাদাত, বাংলাদেশ ন্যাপের এমএন শাওন সাদেকী,  বিকল্পধারার (একাংশ) শাহ আহমেদ বাদল প্রমুখ।

নুর নেতৃত্বাধীন গণঅধিকার পরিষদ : বিকালে উত্তর বাড্ডা ওভারব্রিজের সামনে পদযাত্রাপূর্ব এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে গণঅধিকার পরিষদের সভাপতি নুরুল হক নুর বলেন, পরিষ্কার কথা, সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে। নির্দলীয়-নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন দিতে হবে। জনগণ আর শেখ হাসিনাকে চায় না। একদফা দাবি আদায় না করে ঘরে ফিরব না। ছাত্রলীগ-যুবলীগ-পুলিশলীগ দিয়ে জনতার কণ্ঠ রোধ করা যাবে না। পরে উত্তর বাড্ডা ওভারব্রিজের সামনে থেকে পদযাত্রা শুরু করে রামপুরা ব্রিজে শেষ হয়।

গণঅধিকার পরিষদের ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি মিজানুর রহমানের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুুর রহিমের সঞ্চালনায় আরও বক্তব্য দেন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ রাশেদ খান, উচ্চতর পরিষদের সদস্য আবু হানিফ, শাকিল উজ্জামান, শহিদুল ইসলাম ফাহিম, ফাতেমা তাসনিম, আব্দুজ জাহের, অ্যাডভোকেট সরকার নুরে এরশাদ সিদ্দিকী প্রমুখ।

এবি পার্টি : যুগপৎ আন্দোলনে না থাকলেও একই দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ করে আমার বাংলাদেশ পার্টি (এবি পার্টি)। সকাল সাড়ে ১১টায় বিজয় নগরস্থ বিজয়-৭১ চত্বরের মিছিল সমাবেশে দলের কেন্দ্রীয় সদস্য সচিব মজিবুর রহমান মন্জু বলেন, আন্তর্জাতিক মহল পর্যবেক্ষক না পাঠালে নির্বাচন কারও কাছেই গ্রহণযোগ্য হবে না। সরকার গোঁয়ার্তুমি করে দেশকে চরম অনিশ্চয়তার দিকে ঠেলে দিচ্ছে। অবিলম্বে পদত্যাগ করে অন্তর্বর্তীকালীন নিরপেক্ষ সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর অথবা বিকল্প হিসাবে জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে নির্বাচনের দাবি জানান তিনি।

পার্টির যুগ্ম-সদস্য সচিব ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণের আহ্বায়ক বিএম নাজমূল হকের সভাপতিত্বে ও দলের সিনিয়র সহকারী সদস্য-সচিব আনোয়ার সাদাত টুটুলের সঞ্চালনায় সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন কেন্দ্রীয় নেতা আবদুল্লাহ আল মামুন রানা, যুব পার্টির এবিএম খালিদ হাসান, মহানগর উত্তরের আলতাফ হোসাইন, বাংলাদেশ ছাত্রপক্ষের মোহাম্মদ প্রিন্স, মহানগর দক্ষিণের আব্দুল হালিম খোকন, যুবনেতা হাদিউজ্জামান খোকন, নারী নেত্রী সুলতানা রাজিয়া প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category