• মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১১:৩৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ

ফোনের ব্যাটারী গিলে খাচ্ছে যে সব অ্যাপ! জেনে নিন,

Reporter Name / ২০৫ Time View
Update : বৃহস্পতিবার, ২৩ মার্চ, ২০২৩

স্মার্টফোনের ব্যাটারিকে সর্বদা ভাল রাখার কাজটি বড় চ্যালেঞ্জিং। প্রথমত, চার্জটা ঠিক করে দিতে জানা দরকার। দ্বিতীয়ত, কোন কোন অ্যাপ ফোনের ব্যাটারি খেয়ে নিচ্ছে সেটাও খুঁজে বের করা দরকার। ফোনটা যেই অন করি আমরা, একাধিক উপায়ে তার ব্যাটারি বাঁচানোর চেষ্টা করি। কিন্তু সরষের মধ্যেই যে ভূত লুকিয়ে থাকে, তা তো আগে জানা দরকার। তাই, ফোনের ভাল ব্যাটারি পরিষেবা পেতে গেলে সর্বাগ্রে সেই ফোনের ‘ব্যাটারিখেকো’ অ্যাপগুলিকে খুঁজে বের করতে হবে।

স্মার্টফোনের ব্যাটারি বাঁচাতে গিয়ে আমরা একাধিক পন্থা অবলম্বন করে থাকি। ব্রাইটনেস কমিয়ে দিই, বারংবার চার্জ দিই, এমনই কত কিছু করি আমরা। ব্রাইটনেস কমিয়ে আপনি ফোনের ব্যাটারি কিছুটা হলেও বাঁচাতে পারেন ঠিকই। কিন্তু যথেচ্ছ ভাবে যখন-তখন ফোন চার্জ দিলেই হল না। আপনার ফোনের ব্যাটারিটাকে দীর্ঘ সময় বাঁচিয়ে রাখতে একটু নিয়ম করে চার্জ দিতে হবে। কখনও ফোনটাকে ১০০% চার্জ করা উচিত নয়। আবার এটাও খেয়াল রাখতে হবে যাতে আপনার ফোনের চার্জিং২০%-এর নিচে না নেমে যায়।

Google Play Store-এ এমন অগুনতি Android অ্যাপ রয়েছে, যেগুলি গ্রাহকের স্মার্টফোনের ব্যাটারি খেয়ে নেয়। তার মধ্যে গুটিকয়েক এমন অ্যাপ রয়েছে, যেগুলি অত্যন্ত জরুরি। কিন্তু গ্রাহক কী করবেন! তাঁর কাছেও পপুলার অ্যাপগুলি ডাউনলোড করা ছাড়া অন্য উপায় থাকে না। কিন্তু তা-ও আপনার জেনে রাখা দরকার যে, জনপ্রিয় অ্যাপগুলির মধ্যে স্মার্টফোনের ব্যাটারি শেষ করে কোনগুলি।

সতর্ক থাকুন, এই অ্যাপ্লিকেশনগুলির মধ্যে বেশ কিছু আছে, যেগুলি খুব সহায়ক, ডাউনলোড না করলেই নয়। কিন্তু সব অ্যাপ তো আর সহায়ক হতে পারে না। তাই, ইতিমধ্যেই যাঁরা ‘ব্যাটারিখেকো’ অ্যাপ ডাউনলোড করে সমস্যায় পড়েছেন, কিছু অ্যাপ ডিলিট না করলে তাঁদের জন্য বিপর্যয়কর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। তাই, সেই অ্যাপগুলির নাম জেনে নিন।

‘ব্যাটারিখেকো’ ১০ অ্যাপের নাম জেনে নিন
১) Fitbit
২) Uber
৩) Skype
৪) Facebook
৫) Airbnb
৬) Instagram
৭) Tinder
৮) Bumble
9৯) Snapchat
১০) WhatsApp

রিসার্চ ফার্ম pCloud এই ডেটা প্রকাশ করেছে। একবার দেখার পরে নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন, এই অ্যাপগুলির প্রতিটিই অত্যন্ত জনপ্রিয়। এদের মধ্যে বেশিরভাগ অ্যাপই আপনার ফোনে রয়েছে। হোয়াটসঅ্যাপ থেকে শুরু করে ফেসবুক পর্যন্ত এই অ্যাপগুলির বিরুদ্ধে সবথেকে বড় অভিযোগই হল এদের ক্লোজ় করার পরেও ব্যাকগ্রাউন্ডে চলতে থাকে অ্যাপগুলি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category