• মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ১০:২৯ অপরাহ্ন

শিক্ষার ট্র্যাজেডি এবং জাতির মেরুদণ্ডের দুর্দশা

Reporter Name / ১৩৫ Time View
Update : রবিবার, ২৩ জুলাই, ২০২৩

পাঁচ লক্ষাধিক শিক্ষক-কর্মচারীর দাবি আদায়ে জাতীয় প্রেস ক্লাব এলাকা সরগরম। এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জাতীয়করণের একদফা দাবিতে তাদের এ আন্দোলন। সারা দেশ থেকে আসা শত শত শিক্ষক অনেকটা মানবেতরভাবে এখানে রাতদিন অবস্থান করছেন। রোদে পুড়ে ও বৃষ্টিতে ভিজে খেয়ে না খেয়ে জাতির ভবিষ্যৎ গড়ার কারিগররা দাবি আদায়ের জন্য রাজপথকে বেছে নিয়েছেন।
কিন্তু এখন পর্যন্ত তারা সরকারের পক্ষ থেকে কার্যকর কোনো আশ্বাস পাননি। তাদের আশা ছিল সরকার তাদের কষ্টের কথা শুনবেন, বুঝবেন। অথচ সরকারের তরফ থেকে অনেকটা সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, দেশের বিদ্যমান অর্থনৈতিক অবস্থায় কয়েক হাজার কোটি টাকার ব্যয় বাড়িয়ে এ রকম অযৌক্তিক দাবি পূরণ করা সম্ভব নয়।
এদিকে আন্দোলনরত শিক্ষকরা এমন কথা শুনতে নারাজ। তাদেরও সাফ কথা। এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের সঙ্গে সরকার পদে পদে অন্যায় ও বৈষম্য করে আসছে। এবার তারাও দাবি আদায় না করে ঘরে ফিরে যাবেন না। সুষ্ঠু সমাধান না হলে তারা আমরণ অনশনে যাওয়ার হুমকি দিয়েছেন।
যে ইস্যুতে, যে পর্যায়েরই হোক শিক্ষকদের পাঠদান বন্ধ রেখে রাস্তায় নামা মোটেই কাঙ্খিত নয়। আমরা মুখে বলছি, শিক্ষকরা মানুষ গড়ার কারীগর। কিন্তু, এই কারীগরদের রোদ-বৃষ্টিতে রাজপথে, প্রেসক্লাবের সামনে দাবিনামা নিয়ে সরকারের দয়াল কাঙ্গালীপনা কি ‘জাতির বিবেক’ কথাটির সঙ্গে মানায়?  মাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণের দাবিতে আন্দোলনের মাঠে শিক্ষকদের পরিণতি দেখে এ প্রশ্নটি শুধু প্রাসঙ্গিক নয়, কষ্টেরও। দেশে মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ২০ হাজার ৯৬০টি। বিপরীতে সরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ৬৮৪টি। সরকারি-বেসরকারি মিলে মাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ১ কোটি ২ লাখ। শিক্ষক প্রায় ৩ লাখ। মাধ্যমিক শিক্ষকদের যে বেতন-ভাতা, তা দিয়ে পরিবার চালানো বেশ কষ্টসাধ্য। এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা ২৫ শতাংশ উৎসব ভাতা, ১ হাজার টাকা বাড়ি ভাড়া এবং ৫০০ টাকা চিকিৎসা ভাতা পান। একই কারিকুলামের অধীনে থেকেও সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষকদের মধ্যে বিশাল বৈষম্য।
শিক্ষাকে জাতির মেরুদণ্ড, আর শিক্ষকরা সেই মেরুদণ্ডের রূপকার। তাদের শেখানো পাঠপঠনে আগামী দিনের ভবিষ্যৎ হয়ে ওঠে শিক্ষার্থীরা। মুখে ‘শিক্ষকতা মহান পেশা’ স্বীকার করে শিক্ষকদেরও যে সংসার আছে, মৌলিক চাহিদা আছে, সেদিকে তাকানোর সময় নেই। বাংলাদেশের শিক্ষা জাতীয়করণ নিয়ে আলোচনা- আন্দোলন-গবেষণা বহুদিনের। দিনে দিনে তা কেবল জটিল হচ্ছে। বেসরকারি শিক্ষকরা সেই সরকারি তিরিশ টাকা অনুদান দিয়ে শুরু করে আজ মূল বেতনের এক শ ভাগ সরকারি কোষাগার থেকে পাচ্ছেন। এটি সহজে হয়নি, কোনো সরকার ইচ্ছে করেই এটি দিয়ে দেয়নি। এটি শিক্ষকদের বহুদিনের আন্দোলনের ফসল।
দেশে প্রাইমারি শিক্ষাকে জাতীয়করণের গোড়া পত্তন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে। তখন আমাদের জিডিপির আকার ছিল প্রায় ১৪ বিলিয়ন ডলার, এখন তা ৪০০ বিলিয়নের ওপর। বহু বছর ধরে মাত্র ৩১৭টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ছিল সরকারি। বর্তমান সরকার যেসব উপজেলায় সরকারি বিদ্যালয় ছিল না সেগুলোকে সরকারি ঘোষণা করায় বর্তমানে সংখ্যাটি ৬৮০। অর্থাৎ এগুলোর পুরো দায়-দায়িত্ব সরকারের, বাকি প্রায় বিশ হাজার মাধ্যমিক বিদ্যালয় বেসরকারি। মাধ্যমিক পর্যায়ের আরো ৯ হাজারের মতো মাদ্রাসাও রয়েছে। দেশের শিক্ষার দায়িত্ব সরকারের। অথচ দেখা যায় সরকার এমন কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে সরকারি করে, যাতে সরকারের কোষাগার থেকে অতিরিক্ত কোনো অর্থ খরচ করতে না হয়। আবার উল্টোটিও দেখা যায়, কোনো প্রভাবশালী নেতা তার এলাকার কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান তার অবস্থা যতই খারাপ থাকুক না কেন জাতীয়করণ করে ফেলেছেন। তা আরেক ধরনের বৈষম্য তৈরি করেছে। গ্রামীণ এলাকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বেশি অবহেলার শিকার। এগুলোর অর্থনৈতিক অবস্থা ভালো নয়, নির্দিষ্টসংখ্যক শিক্ষক নেই। ভালো শিক্ষকরা সেখানে যেতেও চান না। জাতীয়করণ করা হলে অবহেলিত এই জনগোষ্ঠীর শিক্ষার অধিকার ও মান নিশ্চিত সম্ভব হবে বলে একটি মত রয়েছে।
আবার আমাদের দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষক-শিক্ষার্থীর অনুপাত উপযুক্ত শিক্ষা গ্রহণের অন্তরায়। যতদিন পর্যন্ত একটি শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ২০ হতে ২৫ এ সীমাবদ্ধ রাখতে ব্যর্থ হবো ততদিন আমরা শিক্ষার  শতভাগ সুফল পাবো না। শুধু তাই নয়, অতিরিক্ত শিক্ষক নিয়োগ না করে দুই বা ততোধিক শাখায় পাঠদানের ফলেও শিক্ষার মান ক্রমশ নিম্নগামী হচ্ছে। দেশে প্রচলিত কিন্ডারগার্টেন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ইংরেজি ভার্সনের উপর সরকারের যথাযথ নিয়ন্ত্রণ নেই। এইসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো ন্যাশনাল কারিকুলামের বাইরে গিয়ে স্বেচ্ছাধীনভাবে অতিরিক্ত বিষয়ের পাঠদান করে শিক্ষার্থীদের মেধা মনন নষ্ট করছে । উপরন্ত বাজারের গাইড বইগুলো শিক্ষার্থীদের সৃজনশীল প্রতিভার প্রতিবন্ধক হিসেবে কাজ করছে। বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর দেখভালের দায়িত্ব কখনো রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গের উপর কখনো স্থানীয় সমাজপতিদের উপর দেয়ার কারণে সঠিক তত্ত্বাবধান ব্যাহত হচ্ছে। শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহকে রাজনৈতিক প্রভাবমুক্ত রাখা বাঞ্ছনীয়। শিক্ষা ব্যবস্থার মান উন্নয়নে একীভূত সমন্বিত শিক্ষাব্যবস্থা যেমন প্রয়োজন, তেমনি প্রয়োজন সমগ্র শিক্ষা খাতের তত্ত্বাবধান ও নিয়ন্ত্রণ একই কর্তৃপক্ষের হাতে ন্যস্ত রাখা।
অন্যদিকে,শিক্ষকদের জীবন মানে বৈষম্যের অবসান না ঘটিয়ে শিক্ষার উন্নয়ন কি করে সম্ভব? আমরা ভুলে যাই, মায়ের পুষ্টি সাধন নিশ্চিত না করলে, শিশু অপুষ্টির শিকার হবে। হচ্ছেও তাই। এই বৈষম্যের কারণে শিক্ষকতায় মেধাবীরা আসছে না। বৈষম্য বিনাশ না হলে এ জাতি মেরুদন্ড সোজা করে দাঁড়াতে পারবে না। তাকে নির্ভর করতে হবে অন্যের ওপর। আর আমাদের শিশুদের নিয়ে চলতে থাকবে নতুন নতুন এক্সপেরিমেন্ট। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, যেখানে রাজশাহীর আমগাছ চট্টগ্রামে রোপন করলে ফলের গুণাগুণ বজায় থাকে না, সেখানে আমাদের কর্তা ব্যক্তিরা কীভাবে ভাবলেন, ইউরোপ আমেরিকার শিক্ষা পদ্ধতি আমাদের দেশে খুব  সহজেই খাপ খাইয়ে নেবে। তাছাড়া জমিতে ভালোভাবে চাষবাদ না দিয়ে ফসল রোপন করে ভালো ফসল আশা করা, দিবা স্বপ্নের নামান্তর। যতদিন নীতি-নির্ধারকগণ শিক্ষাকে উত্তম বিনিয়োগ মনে করবেন না ততদিন শিক্ষার বেহাল দশা কাটবে না।
আমরা প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে টিকে থাকার তাগিদে মাতৃভাষার পুষ্টি সাধন না করে বিদেশি ভাষা চর্চায় ব্যস্ত আছি, যা আমাদের মেরু অস্থির ক্ষয় সাধন করছে। শিক্ষা যে আমাদের মৌলিক অধিকার, এটি প্রায়শই উপেক্ষিত। শিক্ষাকে সর্বজনীনভাবে গড়ে তুলতে না পারলে জাতীয় উন্নয়ন সামঞ্জস্যপূর্ণভাবে হবে না। রুচিশীল জাতি গঠনের জন্য দৃশ্যমান উন্নয়নের চেয়ে মনোজাগতিক উন্নয়ন বেশি প্রয়োজন, আমাদের তা বুঝতে হবে। শিক্ষা উপেক্ষিত হলে আমাদেরকে পাশ্চাত্যের দাস হয়ে কাল কাটাতে হবে। এক হিসাব বলছে, দেশের ৩০ হাজার প্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ করা হলে সরকারের অতিরিক্ত এক হাজার কোটি টাকা খরচ হবে। আশি ও নব্বইয়ের দশকে আন্দোলনের সময় প্রতিষ্ঠান জাতীয়করণের চেয়ে শিক্ষক-কর্মচারীদের স্কেল অনুযায়ী শতভাগ বেতন প্রদান এবং অন্যান্য আর্থিক সুযোগণ্ডসুবিধা বাড়ানোর বিষয়টিই বেশি গুরুত্ব পায়।  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দ্বিতীয় মেয়াদে (২০০৯-১৪) সরকার গঠন করলে এমপিওভুক্ত সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের চাকরি জাতীয়করণের বিষয়টি বেশ গুরুত্বপূর্ণ আলোচনার বিষয় হয়ে ওঠে এবং জাতীয়করণ করা হলে সরকারের অতিরিক্ত ৪০ হাজার কোটি টাকার প্রয়োজন হবে। এসব হিসাব আলোচনাতেই থেকেছে। সমস্যার সমাধান হয়নি। হিসাবের নিস্পত্তিও হয়নি।
চলমান আন্দোলনে আরো নানান কথা যোগ হয়েছে। আন্দোলনকারীরা শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ ও আলোচনা করে কোনো সাফল্যের নিশানা না দেখে এখন প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাতপ্রার্থী। সেই পর্যন্ত কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত তাদের। এ রকম সময়ে আকস্মিকভাবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গ্রীষ্মকালীন ছুটি বাতিল করে দেয়া হয়েছে। আন্দোলকারী শিক্ষকরা একে তাদের আন্দোলন মাঠে মার খাওয়ার অভিসন্ধি বলে ভাবছেন। এক পর্যায়ে শিক্ষামন্ত্রী  এ সময়ে মাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণের দাবিকে অযৌক্তিক- অবাস্তব বলেও মন্তব্য করেছেন। যা প্রকারান্তরে ১১ জুলাই থেকে আন্দোলনকারী শিক্ষকদের বাড়তি আঘাত দেয়া। এমনিতেই বাংলাদেশের শিক্ষাখাত অনেকটা মুমূর্ষু। এখন সমন্বিত একমুখী শিক্ষাক্রম দিয়ে একে মারার সাঁড়াসী পর্ব চলছে। কিন্তু এর পক্ষে আনন্দদায়ক, পরীক্ষামুক্ত, হাতেকলমে, সকল বিষয়ে জানা, কর্মমুখী, বৈশ্বিক চাহিদা, চতুর্থ শিল্প বিপ্লব ইত্যাদি যেসব গালভারি শব্দ ব্যবহার করা হচ্ছে, সেগুলোই হলো সেই দাওয়াই, যার চমক-ধাঁধা দেখিয়ে দেখিয়ে রোগীর কংকাল-হাড্ডি আরো উন্মুক্ত করা হচ্ছে!
শিক্ষার যে আক্ষরিক অথবা অন্তর্নিহিত অর্থ তা আমাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে অপ্রতুল। যে কোনো শিশুর বেড়ে ওঠার পথপরিক্রমায় সামাজিকীকরণে যে কয়টি প্রতিষ্ঠান সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে সেগুলোর মধ্যে  শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অন্তর্ভুক্ত।  সেখানে এখনো কর্মমুখী শিক্ষা অনুপস্থিত। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে জীবনের চলার পথে কী কী প্রয়োজনে এবং সেগুলো কিভাবে করতে হবে তা শেখানোর ব্যবস্থা নেই। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে কেবল পড়তে, লিখতে বা হিসাব করতে শেখা পর্যন্ত সীমিত রাখায় কর্মমুখী শিক্ষার দিকটি উহ্যই থেকে যাচ্ছে। দৈনন্দিন জীবনের অপরিহার্য রান্না-বান্না, ট্রাফিক রুলস,  প্রাথমিক চিকিৎসা, আত্মরক্ষা, ঘরদোর গোছানো, জামা-কাপড় কাচা, নৈতিক শিক্ষা, খেলাধূলা, সঙ্গীত, নৃত্য, সাঁতারসহ নিত্য জরুরি পর্বগুলো এখানে অনুপস্থিত। শিক্ষার এই এই ফাঁকা ব্যবস্থা জাতির মেরুদণ্ডকে মোটেই পোক্ত করছে না।  বিত্তবান তথা নীতি-নির্ধারকরা তাদের সন্তানদের এই শিক্ষায় সামিল করছেন না। বুঝে-শুনেই এই কৌশল তাদের।  কুদরাত এ খুদা শিক্ষা কমিশন (১৯৭৪) এবং জাতীয় শিক্ষানীতি (২০১০) এ বর্ণিত বৈষম্যহীন একীভূত  শিক্ষা ব্যবস্থার কথা তারাও বলেন। কিন্তু, বাস্তবায়নে ভূমিকা রাখেন না। এ ট্র্যাজেডিতেই টিকে আছে বা এগিয়ে যাচ্ছে আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা।

লেখক ঃ সাংবাদিক ও কলামিস্ট

-রিন্টু আনোয়ার


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category